বাংলাদেশ

এবার পুলিশের হাতে আহত হয়েছেন এক বীর মুক্তিযোদ্ধা

এবার পুলিশের হাতে আহত হয়েছেন এক বীর মুক্তিযোদ্ধা।এই ঘটনাটি  ঘটে কুড়িগ্রামের উলিপুর উপজেলার দলদলিয়া ইউনিয়নের তেজারমোড় নামক এলাকায় ।ঘটনাস্থলে পুলিশ ঐ বীর মুক্তিযোদ্ধা সহ আরো কয়েকজনকে লাঠিপেটা করে আহত করে। 

 
৮ জুন মঙ্গলবার  দুপুরে কুড়িগ্রামের উলিপুর উপজেলায় হানিফ পরিবহনের একটি বাস নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে পিতা-পুত্র দুজনকে  ধাক্কা দেয়।এতে তারা গুরতর ভাবে আহত হন।পরে এলাকার লোকজন তাদের রংপুর মেডিকেল হাসপাতালে নিয়ে যান।
 
 
দুর্ঘটনার পরে স্থানীয়রা উপজেলার তেজার মোড়ের গাজীর দরগা এলাকায় বাসটি  আটকে রাখে। গতকাল (৯জুন)  পুলিশ বাসটিকে উদ্ধার করতে আসে।এই সময় আশেপাশে  থাকা লোকজন কিছু বুঝে  উঠার আগেই পুলিশ লাঠিপেটা শুরু করে।এতে ঘটনাস্থলে অনেকেই আহত হন। 
 
 
এর মধ্যে ছিলেন বীর মুক্তিযোদ্ধা রফিকুল ইসলাম যার বয়স ৬৮ বছর।পুলিশের মারধরের ঘটনায় আহত হয়েছেন আরও দুই ব্যক্তি। তাদের মধ্যে একজন হলেন আজাহার আলী যার বয়স ৬০ এবং অন্যজন হলেন জাহিদ বাবু যার বয়স ১৭ বছর। 
 
 
বীর মুক্তিযোদ্ধাকে লাঠি দিয়ে মারধরের ঘটনায় এলাকার লোকজন ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন।আহত মুক্তিযোদ্ধা রফিকুল ইসলাম বলেন, সড়ক দুর্ঘটনায় আহত দুই জন আমার ভাই ও ভাতিজা।সড়ক দুর্ঘটনার আলোচনা বৈঠক চলাকালীন  পুলিশ কিছু না শুনে সবার উপরে লাঠিপেটা শুরু করে।আমি ঘটনাস্থলে দাঁড়িয়ে ছিলাম। এতে আমি অজ্ঞান হয়ে যাই। উক্ত ঘটনায় তিনি তীব্র নিন্দা ও সরকারের কাছে বিচার চান। 
 
 
উলিপুর থানার অফিসার  (ওসি) ইমতিয়াজ কবির বলেছেন, হানিফ পরিবহনের লোকজনের উপর  এলাকার লোকজন ক্ষিপ্ত হয়ে ছিল।এই সময় ঘটনা স্থলে পুলিশ এলে পরিস্থিতি আরো খারাপের দিকে যায়। তখন পুলিশ লোকজনকে সামলাতে গেলে ধাক্কা ধাক্কি লেগে  একজন বীর মুক্তিযোদ্ধা নাকি পরে যান। এই ঘটনাটি অনাকাঙ্ক্ষিত।পুলিশ ইচ্ছে করে কাউকে লাঠি পেটা করেনি। 
 
 

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button