আন্তর্জাতিক

খুব মারাত্মক ঘূর্ণিঝড় ইয়াস আসছে, এটি কখন বাংলায় আঘাত হানবে?

 ঘূর্ণিঝড় ইয়াস আসছে। ইয়াশ খুব শক্তিশালী ঘূর্ণিঝড়ে পরিণত হবে। বুধবার ঘূর্ণিঝড়টি পশ্চিমবঙ্গ ও উড়িষ্যার উপকূলে আঘাত হানবে।

হাইলাইটস

  • ইয়াস খুব শক্তিশালী ঘূর্ণিঝড়ে পরিণত হতে চলেছে
  • বুধবার সকালে ঘূর্ণিঝড়টি পশ্চিমবঙ্গ ও উড়িষ্যার তীরে আঘাত হানবে
  • রাজ্যের উপকূলীয় জেলাগুলিতে ২৫ মে,  হালকা থেকে মাঝারি বৃষ্টি  ও ঝরো হাওয়ার  পূর্বাভাস ।

 
ঘূর্ণিঝড় ইয়াস আসছে ক্রমবর্ধমান শক্তি নিয়ে। ইয়াস খুব শক্তিশালী ঘূর্ণিঝড়ে পরিণত হতে চলছে। শনিবার সকালে পূর্ব মধ্য বঙ্গোপসাগরে নিম্নচাপ দেখা দিয়েছে। আগামীকালের মধ্যে এটি গভীর নিম্নচাপ পরিণত হবে। তারপরে উত্তর-পশ্চিম দিকে এগোবে। সোমবার ঘূর্ণিঝড়ে পরিণত হবে। এটি পরের ২৪ ঘন্টা একটি অত্যন্ত শক্তিশালী ঘূর্ণিঝড়ে পরিণত হবে। এরপরে ইয়াস আবার উত্তর-পশ্চিম দিকে চলে যাবে। বুধবার সকালে ঘূর্ণিঝড়টি পশ্চিমবঙ্গ ও উড়িষ্যার উপকূলে আঘাত হানবে।
 
 
 
আবহাওয়া দফতর সূত্রে জানা গেছে, ঘূর্ণিঝড়টি পশ্চিমবঙ্গে আঘাত হানতে পারে। তবে গত বছরের ভয়াবহ ঘূর্ণিঝড়  আম্ফানের চেয়ে এর গতিবেগ ও ক্ষয় ক্ষতি হওয়ার সম্ভাবনা কিছুটা কম । আবহাওয়া অধিদফতর সূত্রে জানা গেছে, রাজ্যে ৪০-৪৫ কিঃমিঃ প্রতি ঘণ্টায় গতিতে বাতাস চলবে। মঙ্গলবার বাতাসের গতিবেগ ঘন্টায় ৭০ কিঃমিঃ পর্যন্ত হতে পারে।
 
আরও পড়ুন 
 

করোনার মাঝেও দেশে ১৬৮ টি ধর্ষনের ঘটনা

কচ্ছপকে খাওয়াতে গিয়ে নিজেই খাবার হয়ে গেল পরে রইল কঙ্কাল

 
আলিপুর আবহাওয়া দফতর সূত্রে জানা গেছে, ২৫ মে থেকে রাজ্যের উপকূলীয় জেলাগুলিতে হালকা থেকে মাঝারি বৃষ্টি শুরু হবে। কোথাও কোথাও ভারী বৃষ্টি হতে পারে এবং পরবর্তীতে  বৃষ্টিপাতের পরিমাণ বাড়বে। বাকি জেলাগুলিতেও বৃষ্টি হবে। রাজ্যটিতে ২৬ ও ২৭ এ মে ভারী বৃষ্টি হবে।  ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাবের কারণে সমুদ্র  উত্তাল  হয়ে উঠতে পারে। ২৩ শে মে থেকে জেলেদের সমুদ্রে যেতে নিষেধাজ্ঞা দেওয়া হয়েছে। সমুদ্রের মাঝখানে যারা থাকে তাদেরকে ২৩ মে সকাল সকাল  ফিরে যাওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। 
 

ঘূর্ণিঝড়টির নামকরণ ও এর অর্থ ঃ 

জানা গেছে যে ওমান এই ঘূর্ণিঝড়টির নাম দিয়েছে। এই ঝড়ের নাম ইয়াস। যার অর্থ দুঃখ ও হতাশা । শব্দটি এসেছে ফারসি ভাষা থেকে। ভারত, বাংলাদেশ, মায়ানমার, ওমান, পাকিস্তান, কাতার, সৌদি আরব এবং শ্রীলঙ্কা সহ ১৩ টি দেশের একটি কমিটি নামটির সিদ্ধান্ত নিয়েছে। আন্তর্জাতিক আইন অনুসারে, ঘূর্ণিঝড় তৈরি করে মহাসাগরগুলি বেসিনের দেশগুলির নামে নামকরণ করা হয়। বিশ্বের মোট ১১ টি সংস্থা ঝড়ের নাম দিয়েছে। বিশ্ব আবহাওয়া সংস্থা এবং এশিয়ার জন্য জাতিসংঘের অর্থনৈতিক ও সামাজিক কমিশনের সদস্য দেশগুলি ঘূর্ণিঝড়ের নামকরণ শুরু করে। ইয়াসের পর  অন্যান্য ঘূর্ণিঝড় হ’ল গুলাব, সাহিন, জাওয়াদ, আশানী, সীতারং, মান্দাউস, মোচা।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button