বিনোদন

স্তন ক্যান্সার এর লক্ষণ ও স্তন ক্যান্সার প্রতিরোধের উপায়

সারা বিশ্বে দিন দিন স্তন ক্যান্সারে আক্রান্ত নারীর সংখা বেড়েই চলছে।এটি একটি ঘাতক ব্যাধি।আমাদের দেশে প্রতি বছর ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়ে যেসব নারী মারা যায় তার প্রধান কারণ হল স্তন ক্যান্সারে।কারণ রক্ষণশীল সমাজে এইসব ব্যাপারে নারীরা ডাক্তারের কাছে যেতে অথবা কারো কাছে বলতে লজ্জা পায়।যার ফলে স্তন ক্যান্সারে মৃত্যুর সংখ্যা বেড়েই চলছে।

 
বাংলাদেশে প্রতি বছর ১৫ হাজার নারী স্তন ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়ে থাকে। এর মধ্যে মৃত্যু্ হয় প্রায় হাজার নারীর। নারীদের বয়স বাড়ার সাথে সাথে স্তন ক্যান্সারে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকিও বেড়ে যায়।বিশেষ করে ৪০ এর পর।তবে প্রথম অবস্থায় যদি স্তন ক্যান্সার শনাক্ত হয় তাহলে চিকিৎসার মাধ্যমে ভালো হওয়া সম্ভব।
 

 

দৈনন্দিন জীবন যাত্রার পরিবর্তন ও এসব বিষয়ে সচেতন হলে এই মরণব্যাধি থেকে রক্ষা পাওয়া যেতে পারে।তাই আজ আমরা জানব স্তন ক্যান্সার এর লক্ষণ ও স্তন ক্যান্সার প্রতিরোধের উপায়।চলুন তাহলে জেনে নেই।

স্তন ক্যান্সার এর লক্ষণ সমূহ
 
১। স্তনে চাকা দেখা দিলে।তবে মহিলাদের বিভিন্ন কারণে স্তনে চাকা দেখা দিতে পারে।অন্যান্য চাকার সঙ্গে এর পার্থক্য হল এটি খুবই শক্ত ও নড়াচড়া করা যায়না।
২।স্তনের আকার পরিবর্তন হলে।
৩। স্তনের বোটার কোন ধরনের পরিবর্তন লক্ষ করলে,যেমন স্তনের বোটা ভেতরে ঢুকে গেলে,সমান না থাকলে অথবা বাঁকা হয়ে গেলে।
৪।স্তনের বোটা থেকে এক ধরনের তরল রস বের হলে।
৫।স্তনের আশে পাশে ত্বকের কোন পরিবর্তন লক্ষ করলে।
৬।স্তনের উপরিভাগ অমসৃণ ও স্তনে চাকা থাকা সত্তেও ব্যথা না থাকলে। 
৭।স্তনের রঙ পরিবর্তন হলে ও লোমকূপের ছিদ্র বড় হয়ে গেলে।
 
 
স্তন ক্যান্সার প্রতিরোধের উপায়
১।দৈনন্দিন খাদ্যাভ্যাস পরিবর্তন করতে হবে।যেমন,বেশি বেশি শাক সবজি ও ফলমূল খেতে হবে।
২।বাইরের খাবার, বিশেষ করে ফাস্টফুড ও অতিরিক্ত মশলা জাতীয় খাবার খাওয়া থেকে বিরত থাকতে হবে।
৩।অতিরিক্ত ওজন বৃদ্ধি পেলে স্তন ক্যান্সার এর ঝুঁকি থাকে।তাই ওজন নিয়ন্ত্রন করতে হবে।
৪। জন্মনিরোধক বড়ি অল্পবয়স হতে ও বহুদিন ধরে না খাওয়া।
৫। ধূমপান ত্যাগ করা।
৬। অ্যালকোহল অর্থাৎ নেশা জাতীয় দ্রব্য পরিহার করতে হবে।
৭। সন্তানকে সঠিক ভাবে বুকের দুধ পান করাতে হবে।
৮।এছাড়াও ২০ বছর বয়স থেকে স্তন পরিক্ষা করালে স্তন ক্যান্সার প্রতিরোধ করা সম্ভব।
সাধারণত পিরিয়ডের সময় হরমোনের কারণে মেয়েদের স্তনে চাকা দেখা দেয়।তাই পিরিয়ড শেষ হওয়ার পরেও যদি দীর্ঘ দিন যাবত স্তনে চাকা ও গোটা জাতীয় কিছু দেখা দেয় তাহলে অবহেলা না করে অবশ্যয় ডাক্তারের পরামর্শ নিতে হবে।এছাড়াও যাদের পরিবারে স্তন ক্যান্সারের হিস্ট্রি আছে তাদেরকে এ বিষয়ে সচেতন হতে হবে।
 

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button